Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / জেলার খবর / বাঘায় ছাত্রীকে নিয়ে উধায় স্কুল শিক্ষকের স্থায়ী অবসারনের দাবিতে মানববন্ধন

বাঘায় ছাত্রীকে নিয়ে উধায় স্কুল শিক্ষকের স্থায়ী অবসারনের দাবিতে মানববন্ধন

বাঘা (রাজশাহী) প্রতিনিধি: রাজশাহীর বাঘায় ছাত্রীকে নিয়ে উধায় হওয়া স্কুল শিক্ষক জাকির হোসেন জুয়েলের স্থায়ী অপসারনের দাবিতে মানববন্ধন করা হয়েছে। সকাল ১১টায় স্কুলের শিক্ষার্থী, অভিভাবক এলাকাবাসীর আয়োজনে এই মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে তদন্ত সাপেক্ষে শিক্ষকের শাস্তিমুলক ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে বলে নিশ্চত করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা।

জানা যায়, বাঘা উপজেলার মীরগঞ্জ মুছার ঈদগা বাজার এম এইচ বালিকা বিদ্যালয়ের এক দশম শ্রেণির ছাত্রীকে নিয়ে একই স্কুলের ইংরেজি বিভাগের শিক্ষক জাকির হোসেন সোমবার (৩০ এপ্রিল) প্রেমের টানে পালিয়ে যায়। এই ঘটনা পরের দিন জানাজানি হলে এলাকার লোকজন উত্তেজিত হয়ে উঠে। তাৎক্ষনিক ঘটনাটি নিয়ন্ত্রন করার জন্য স্কুল পরিচালনা কমিটির পক্ষ থেকে শিক্ষক জাকির হোসেন জুয়েলকে বহিস্কার করার আসস্থ করেন প্রধান শিক্ষক। মীরগঞ্জ বাজারে ঘন্টা ব্যাপি আয়োজিত মানববন্ধন অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল মালেক, শিক্ষার্থীর অভিভাবক প্রদীপ কুমার, নবম শ্রেণির শিক্ষার্থী শিখা খাতুন, তাহমিনা খাতুন, দশম শ্রেণির শিক্ষার্থী জেরিনা আক্তার, সালমা খাতুন প্রমুখ। এই মানববন্ধনে শিক্ষক জাকির হোসেন জুয়েলকে স্থায়ীভাবে স্কুল থেকে বহিস্কার করা দাবি করেন। আর এই দাবিমানা না হলে বৃহত্তর আন্দলোনের হুমকি দেয়া হয়েছে। শিক্ষক জাকির হোসেন জুয়েল চারঘাট উপজেলার কালুহাটি গ্রামের হাসেম মাষ্টারের ছেলে।

এই বিষয়ে শিক্ষক জাকির হোসেন জুয়েলের মুঠোফোনে বারবার যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও ফোন রিসিফ করেনি। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক আবদুল মালেক বলেন, ঘটনাটি জানার পর তাৎক্ষনিক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা ও শিক্ষা কর্মকর্তা আরিফুর রহমানকে জানানো হয়। শিক্ষক জাকির হোসেন জুয়েলকে স্কুলে না আসার জন্য বলা দেওয়া হয়েছে। এছাড়া উদ্ধতন কর্তৃপক্ষের পক্ষ থেকে বহিস্কারের দাবিদে মানববন্ধন করা হয়েছে।

বাঘা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা শাহিন রেজা বলেন, বিষয়টি স্কুলের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে। উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে আইনীভাবে শাস্তিমুলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা আরিফুর রহমান বলেন, বিষয়টি জেনেছি। এই ঘটনায় প্রধান শিক্ষককে আইনী আশ্রয় নেয়ার পরামর্ম দেয়া হয়েছে।

বাঘা থানার অফিসার ইনচার্জ রেজাউল হাসান বলেন, এই ঘটনায় কোন অভিযোগ পায়নি। অভিযোগ পেলে অবশ্যই তদন্ত সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে।

Comments

comments