Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / জাতীয় / এশিয়ার সর্বোচ্চ সুবিধা নিতে বাংলাদেশে আসুন: ব্যবসায়ীদের প্রধানমন্ত্রী

এশিয়ার সর্বোচ্চ সুবিধা নিতে বাংলাদেশে আসুন: ব্যবসায়ীদের প্রধানমন্ত্রী

অনলাইন ডেস্ক: বিদেশি বিনিয়োগকারীদের জন্য বাংলাদেশে দেওয়া নানা সুবিধার কথা তুলে ধরে সেগুলোকে কাজে লাগাতে বিশ্বের শীর্ষ ব্যবসায়ীদের এদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

স্থানীয় সময় বুধবার বিকেলে লন্ডনের ইন্টারকন্টিনেন্টাল হোটেলে বিভিন্ন ব্যবসায়ী ফোরামের নেতাদের সঙ্গে কমনওয়েলথভুক্ত দেশগুলোর সরকারপ্রধানদের গোলটেবিল বৈঠকে এ আহ্বান জানান তিনি।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রী টেরিজা মের সঞ্চালনায় গোলটেবিলে ১৪টি দেশের সরকারপ্রধান উপস্থিত ছিলেন। শেখ হাসিনা তার বক্তব্যে বাংলাদেশের ক্ষুদ্র সঞ্চয় ও ই-কমার্স এবং সংঘাতমুক্ত শান্তিপূর্ণ বিশ্ব প্রতিষ্ঠার ওপর গুরুত্বরোপ করেন।

ব্যবসায়ীদের বাংলাদেশে আসার আহ্বান জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, “বাংলাদেশে বিনিয়োগের জন্য আমি আপনাদের আহ্বান জানাচ্ছি। বিশেষ করে, বিশ্বের যেসব ব্যবসায়ী নেতারা এখানে উপস্থিত আছেন তাদের।

আমি আপনাদের নিশ্চয়তা দিচ্ছি, এশিয়ার সবচেয়ে বেশি এফডিআই (প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ) প্রণোদনা দেওয়া দেশে আপনারা আমাদের সরকারের কাছ থেকে পূর্ণ সহযোগিতা পাবেন।”

কমনওয়েলথভুক্ত এসআইডিএস (স্মল আইল্যান্ড ডেভেলপিং স্টেট), এলএলডিসি (ল্যান্ড লকড ডেভেলপিং স্টেট) এবং আফ্রিকান ও ক্যারিবিয়ান দেশগুলোর সঙ্গে বাংলাদেশের বাণিজ্য সম্ভাবনার কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

বিনিয়োগকারীদের জন্য বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বৃহৎ বাজার এবং বিশ্বের বিভিন্ন বাজারে বাংলাদেশের পণ্যের সুবিধা পাওয়ার কথাও তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।

তিনি বলেন, “১৬ কোটি মানুষের মধ্যে ৯ কোটি মধ্যবিত্ত ক্রেতা এবং ইউরোপীয় ইউনিয়ন, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, জাপানের বাজারে বাংলাদেশের পণ্যের শুল্ক ও কোটামুক্ত বাণিজ্য সুবিধা নিয়ে বাংলাদেশকে এশিয়ার ভবিষ্যৎ সেরা বিনিয়োগ হাব হিসেবে বিদেশি বিনিয়োগকারীরাও ব্র্যান্ডিং করছে।”

টেকসই বিনিয়োগ সুরক্ষা দিতে বিদ্যুৎ উৎপাদন, বিশেষ করে, তেল ও গ্যাস উৎপাদনে সরকার সর্বোচ্চ প্রাধান্য দিচ্ছে বলে জানান প্রধানমন্ত্রী।

অবকাঠামো উন্নয়ন, মানবসম্পদের সক্ষমতা ও কর্মসংস্থান বাড়ানো এবং প্রযুক্তির ব্যবহার গতিশীল করার ওপরও সরকার জোর দিচ্ছে বলে জানান শেখ হাসিনা।

এ সবের ফলে বাংলাদেশে দারিদ্র্যের হার কমে আসার কথা উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন, ১৯৯১ সালে দারিদ্র্যের হার ছিল ৫৬ দশমিক ৭০ শতাংশ। যা ২০১৫ সালে ২২ দশমিক ৪০ ভাগে নেমে এসেছে।

বাংলাদেশে প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ বাড়ছে বলেও জানান তিনি। শেখ হাসিনা বলেন, চলতি অর্থবছরে ৩ বিলিয়ন ডলার প্রত্যক্ষ বিদেশি বিনিয়োগ এসেছে।

অর্থনৈতিক ক্ষমতায়ন ও টেকসই উন্নয়নের জন্য তার সরকারের নেওয়া বিভিন্ন নীতি ও কর্মসূচির সুফল এসেছে বলে মন্তব্য করেন তিনি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, রপ্তানিকেন্দ্রিক প্রবৃদ্ধি বাংলাদেশের কর্মসংস্থান বাড়াতে ও দারিদ্র্য কমাতে ভূমিকা রেখে চলেছে।

গত মাসে জাতিসংঘ থেকে স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে উত্তরণের যোগ্যতা অর্জনের স্বীকৃতি মেলার কথাও তুলে ধরেন তিনি।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব নজিবুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

মঙ্গলবার থেকে শুরু হয়েছে কমনওয়েলথের সরকার প্রধানদের ২৫তম সভা। ‘টুয়ার্ডস এ কমন ফিউচার’ প্রতিপাদ্য নিয়ে শুরু হওয়া এ সম্মেলনে যোগ দিতে সোমবার লন্ডন পৌঁছেন শেখ হাসিনা।

Comments

comments