Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / অন্যান্য / পাইলট আবিদের অনুরোধ রাখেনি কন্ট্রোল রুম (পাইলটের শেষ অডিও রেকর্ড)

পাইলট আবিদের অনুরোধ রাখেনি কন্ট্রোল রুম (পাইলটের শেষ অডিও রেকর্ড)

অনলাইন ডেস্ক: ঢাকা থেকে নেপালের কাঠমান্ডুর উদ্দেশে ছেড়ে যাওয়া বাংলাদেশের বেসরকারি বিমান সংস্থা ইউএস বাংলার একটি উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে অর্ধশতাধিক আরোহী নিহত হয়েছেন।

বিমানবন্দরের এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল রুম থেকে পাইলটকে অবতরণের ভুল নির্দেশনা দেয়া হয়। বিমান বিধ্বস্ত হওয়ার আগ মুহূর্তে বিমানের পাইলটের সঙ্গে এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল রুমের সর্বশেষ কথোপকথনে এমনই আভাস পাওয়া গেছে। বিমানটি কন্ট্রোল রুমের সঙ্গে পাইলটের সর্বশেষ কথোপকথনের একটি অডিও রেকর্ড হাতে পেয়েছে নেপালের ইংরেজি দৈনিক নেপালি টাইমস। নেপালি এ দৈনিক বলছে, কন্ট্রোল রুম থেকে ভুল বার্তা দেয়ার কারণেই ককপিটে দ্বিধায় পড়েন পাইলট।

অডিও রেকর্ডের শুরুতে শোনা যায়, এয়ার ট্রাফিক কন্ট্রোল থেকে সিগন্যাল না পাওয়ায় প্রায় আধঘণ্টা আকাশেই ঘুরছিল ইউএস বাংলা বিএস২১১ বিমানটি। রানওয়ে ০২-এ অবতরণের চেষ্টা করছিলেন বিমানের ক্যাপ্টেন আবিদ সুলতান। তবে বারবারই কন্ট্রোল রুম থেকে বিমানটিকে অবতরণের জন্য নিষেধ করা হচ্ছিল। বারবার বলা হচ্ছিল, ‘হোল্ড।’

পাইলট আবিদ সুলতান বলছিলেন, ‘আমি ডান দিকে যাচ্ছি।’ ঘুরতে থাকা সময়ের ২৫ মিনিটের শেষ দিকে এটিসি থেকে বলা হচ্ছিল, ‘রানওয়ে ক্লোজড।’ একপর্যায়ে কোনো উপায় না পেয়েই বিমানটি অবতরণ করাতে বাধ্য হন পাইলট।

এদিকে, বিধ্বস্ত বিমানটির নেপালি এক যাত্রী বলেছেন, ঢাকা থেকে স্বাভাবিকভাবেই বিমানটি উড্ডয়ন করে। কিন্তু কাঠমান্ডুতে অবতরণের সময় এটি অস্বাভাবিক আচরণ শুরু করে।

উল্লেখ্য, ইউএস-বাংলা কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে ৭৮ আসনের বিমানটিতে ৬৭ জন যাত্রী এবং ৪ জন ক্রু মেম্বার ছিলেন।

ত্রিভুবন বিমানবন্দর কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, এদের মধ্যে ৩৭ জন পুরুষ, ২৭ জন নারীর সঙ্গে ছিল দুই শিশুও।

এদের মধ্যে ৩২ জন বাংলাদেশি। নেপালের ৩৩ জন, মালদ্বীপের ১ জন এবং চীনের ১ জন ছিলেন বাকিদের মধ্যে।

ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের মুখপাত্র প্রেম নাথ ঠাকুরের দেয়া তথ্য অনুযায়ী, ৭৮ আসনের বোম্বার্ডিয়ার ড্যাশ ৮ কিউ-৪০০ মডেলের উড়োজাহাজটি স্থানীয় সময় ২:২০ মিনিটে বিধ্বস্ত হয়। এসটু-এইউজি নামে নিবন্ধিত ফ্লাইটটি ঢাকা ছেড়েছিলো দুপুর ১:৪৩ মিনিটে।

দুর্ঘটনার পরপরই বিমানবন্দরটিতে সবধরনের উড়োজাহাজের ওঠা-নামা বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।

Comments

comments