Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / অপরাধ / কোম্পানীগঞ্জে এসএসসির ফরম পূরনে অতিরিক্ত অর্থ আদায়

কোম্পানীগঞ্জে এসএসসির ফরম পূরনে অতিরিক্ত অর্থ আদায়

শাহাদাত হোসেন নিশাদ,নোয়াখালী:  নোয়াখালীর কোম্পানীগঞ্জ উপজেলার বিভিন্ন স্কুলে এসএসসি পরীক্ষার ফরম পূরণের নামে অতিরিক্ত অর্থ আদায় ও ফেল বানিজ্যের অভিযোগ উঠেছে।

বিভিন্ন স্কুল থেকে এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিতে যাওয়া পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে সরকার নির্ধারিত ফি ছাড়া অতিরিক্ত টাকা নিচ্ছেন স্কুল কর্তৃপক্ষ। এতে হিমশিম খেতে হচ্ছে গরীব মেধাবী শিক্ষার্থী পরিবারকে।

মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার ফি সংক্রান্ত বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দেওয়া পত্রে উল্লেখিত সুয়্যেমোটো রুল নং-২৫/২০১৪ এর প্রেক্ষিতে মাননীয় হাইকোর্ট বিভাগ হতে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষায় যাহাতে কোন বিদ্যালয় কিংবা মহাবিদ্যালয় শিক্ষা বোর্ড কর্তৃক নির্ধারিত ফি এর বেশি কোন অযুহাত আদায় করতে না পারে। এমনি চিঠি সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে দেওয়া হলেও তারা সরকারি নিয়মের নীতিকে বৃদ্ধাঙ্গুলী দেখিয়ে এসএসসি পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ও ফেল বানিজ্য করে যাচ্ছে।

জানা গেছে, এসএসসি পরীক্ষার ফরর্ম পূরণের জন্য মানবিক বিভাগ ১৫০০টাকা, বিজ্ঞান বিভাগ ১৬২০ টাকা ও মাদ্রাসা বোর্ডের পরীক্ষার্থীদের জন্য ১৪০০ টাকা।

কিন্তু তার পরিবর্তে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ২৫০০ টাকা থেকে ৪৫০০ টাকা পর্যন্ত পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে ফরর্ম পূরণের নামে আদায় করছেন।

এমন খবরের ভিত্তিতে খবর নিয়ে জানা যায়,উপজেলার পেশকার হাট উচ্চ বিদ্যালয় ৩৬০০ টাকা,সিরাজপুর উচ্চ বিদ্যালয় ৩৫০০, মানিকপুর উচ্চ বিদ্যালয় ৩৭০০ টাকা,কোম্পানীগঞ্জ মডেল হাই স্কুল ৩৮০০ টাকা, বামনি উচ্চ বিদ্যালয় ৩৫০০ টাকা,কবি জসীম উদ্দিন উচ্চ বিদ্যালয় ৩৫০০টাকা,চরফকিরা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩৭০০ টাকা,যোগিদিয়া উচ্চ বিদ্যালয় ৩৫০০,হাজারীহাট হাই স্কুল ৩৭০০,কদমতোলা এস.সি উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩৭০০, রাজাপুর উচ্চ বিদ্যালয় ৩৫০০,চৌধুরী হাট বি জামান উচ্চ বিদ্যালয় ১৭০০,ভিভিটিসি টেকনিক্যাল ২৫০০,মেহেরুন্নেছা উচ্চ বিদ্যালয়ে ৩৬০০,মুছাপুর উচ্চ বিদ্যালয় ৩৫০০,বামনি উচ্চ বিদ্যালয় ৩৭০০,মধ্য চরকাঁকড়া উচ্চ বিদ্যালয় ১৯০০ টাকা,মওদুদ আহমেদ উচ্চ বিদ্যালয় ৩৫০০ টাকা,আবু মাঝির হাট উচ্চ বিদ্যালয় ২৬০০ টাকা।এছাড়াও ফেল অনুযায়ী প্রতি বিষয়ে অনুযায়ী টাকার পরিমান বাড়ার সংবাদও পাওয়া গেছে।

জৈনিক অভিভাবক বলেন, আমার ছেলের ফরর্ম পূরণের জন্য ৩৬০০ টাকা দিতে হয়েছে। কিছু কম নিতে বললে তারা বলেন এই টাকা নির্ধারিত বোর্ড ফি কম দেওয়ার সুযোগ নাই।

এছাড়াও আরেক অভিবাবক বলেন,আমি একজন রিক্সা চালক। রিক্সা চালিয়ে ৪ টা ছেলের পড়ালেখার খরচ চালাচ্ছি।সারা মাসে রিক্সা চালিয়ে ৭০০০-৮০০০ টাকা আয় করি। এত বেশি ফরম পুরনের টাকা আমার মত দরিদ্র লোকের পক্ষে পরিচালনা করা একে বারেই অসম্ভব।এমন পরিস্থিতিতে আমরা আমাদের ছেলে মেয়েদের কিভাবে ফরম পূরন করাবো?

এ বিষয়ে বেশ কয়েকটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের প্রধান শিক্ষকের সাথে কথা বললে, তারা বলেন আমরা সরকার নির্ধারিত বোর্ড ফি নিচ্ছি। এর বাইরে অতিরিক্ত কোন টাকা নেওয়া হচ্ছে না।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার শাহ মোহাম্মদ কামাল পারভেজ জানান, শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের দেওয়া চিঠিতে নির্ধারিত বোর্ড ফি ছাড়া পরীক্ষার্থীদের কাছ থেকে অতিরিক্ত অর্থ আদায়ের কোন সুযোগ নাই, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের। যদি কোন প্রতিষ্ঠান তা নিয়ে থাকে তাহলে তাদের বিরুদ্ধে আইন গত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Comments

comments