Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / শিক্ষা / ‘হাতে লিখে পরীক্ষা’ বাতিল করছে ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়

‘হাতে লিখে পরীক্ষা’ বাতিল করছে ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়

শিক্ষা ডেস্ক:  ৮০০ বছরের ‘প্রাচীন’ রীতি বাতিলের কথা ভাবছে ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ। লিখিত পরীক্ষা পদ্ধতি বাতিল করতে যাচ্ছে ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয়। আধুনিক বিশ্বের প্রযুক্তিতে অভ্যস্ত তরুণদের জন্য ৮০০ বছরের পুরনো খাতা-কলমে পরীক্ষা নেয়ার ধারা বদলে ল্যাপটপে পরীক্ষা গ্রহণের প্রস্তুতি নিচ্ছে বিশ্বসেরা এই বিশ্ববিদ্যালয়টি।

ক্যামব্রিজ বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের হিসাব অনুযায়ী, ১৫-২০ বছর আগেও দিনে ঘণ্টার পর ঘণ্টা হাতে লিখত ছাত্রছাত্রীরা। এখন পরিস্থিতি এমন দাঁড়িয়েছে যে পরীক্ষার হল ছাড়া আর হাতে লেখার তেমন দরকারই পড়ে না। ফলে কার্যত সবারই হাতের লেখা নাকি এখন অপাঠ্য। পরিস্থিতি এমন জায়গায় গিয়ে পৌঁছেছে যে যাদের হাতের লেখা একেবারেই পড়া যাচ্ছে না, তাদের আবার গরমের ছুটিতে বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে আসতে হচ্ছে। বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই আধিকারিকের উপস্থিতিতে চিৎকার করে নিজেদের লেখা পড়ে শোনাতে হচ্ছে তাদের।

বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষকদের মতে, ইন্টারনেটে অভ্যস্ত তরুণদের জন্য লিখিত পরীক্ষা দেয়া অনেক কঠিন। ল্যাপটপে অভ্যস্ত এই শিক্ষার্থীদের কাছে খাতা-কলমের হাতের লিখার পরীক্ষা দিন দিন দুর্বোধ্য হয়ে উঠছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে ইতিহাস বিভাগের লেকচারার ডক্টর সারাহ পিয়ারস্যাল বলেন, ‘অবশ্যই হাতে পরীক্ষা দেয়ার পদ্ধতি একটি পুরনো ধারা। অনেক শিক্ষার্থীর কাছেই বিষয়টি অনেক কঠিন এবং পরীক্ষকদের জন্য ও উত্তরপত্র পড়া অনেক কঠিন হয়ে দাঁড়িয়েছে।’
এমনকি পরীক্ষক উত্তরপত্র বুঝতে না পারার কারণে বেশিরভাগ সময় অনেক শিক্ষার্থীকে গ্রীষ্মকালীন সময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ে ডেকে নিয়ে তাদের উত্তরপত্র উচ্চারণ করে পড়ে শোনাতে বলা হয়েছে। তাই ২০১৮ সালের শুরু থেকেই বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘আদি ও ইতিহাস বিভাগ’ খাতা-কলমের পরিবর্তে ল্যাপটপে শিক্ষার্থীদের পরীক্ষা গ্রহণ করবে।

এর আগে, ২০১১ সালে যুক্তরাষ্ট্রের এডিনবুর্গ বিশ্ববিদ্যালয় প্রথম ও দ্বিতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীদের জন্য হাতে লেখা পরীক্ষা বাতিল করে ল্যাপটপ ও স্মার্টফোনে পরীক্ষা পদ্ধতি চালু করে।

Comments

comments