Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / তথ্যপ্রযুক্তি / এটিএম কার্ডে বিশুদ্ধ পানি!

এটিএম কার্ডে বিশুদ্ধ পানি!

তথ্যপ্রযুক্তি ডেস্ক: প্রযুক্তিগত দিক থেকে বিশ্ব এগিয়ে যাওয়ায় মানুষের নানা ঝামেলা কমছে। বাড়ছে উৎপাদন ক্ষমতা। প্রযুক্তিতে খাতেও পিছিয়ে নেই বাংলাদেশ। আধুনিক বিশ্বের সঙ্গে তাল মিলিয়ে এবার চালু হলো বিশুদ্ধ পানির এটিএম কার্ড। যার মাধ্যমে গ্রাহকরা খুব সহজেই পানি সংগ্রহ করতে পারবে। নির্ধারিত বুথে এটিএম কার্ড ঢোকালেই পাইপ থেকে বেরিয়ে আসবে পানি। নাম দেওয়া হয়েছে ‘ওয়াটার এটিএম বুথ’। রাজধানী ঢাকাতেই চালু হয়েছে অভিনব এই পদ্ধতি।

ফকিরাপুল পানির পাম্পে এই বুথ বসিয়েছে ঢাকা ওয়াসা। আর এটি নির্মাণে সহযোগিতা করেছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক কোম্পানি গ্রুন্ডফোজ। ফকিরাপুল ছাড়াও মুগদাতেও আরেকটি বুথ রয়েছে। ঢাকা ওয়াসার পাইলট প্রকল্পের আওতাধীন এ রকম আরো ১০০টি বুথ হবে রাজধানীতে।

প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত ঢাকা ওয়াসার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ইয়ার খান জানান, গভীর নলকূপের সাহায্যে তোলা পানি প্রতি লিটার বিক্রি করা হচ্ছে ৪০ পয়সায়। পানি নিতে হলে ২০০ টাকা ফেরতযোগ্য জামানত দিয়ে একটি কার্ড নিতে হবে। এ জন্য গ্রাহকের জাতীয় পরিচয়পত্রের অনুলিপি ও দুই কপি ছবি লাগবে। এরপর চাহিদা অনুযায়ী, কার্ডে টাকা রিচার্জ করতে হয়। এটিএমে কার্ড ঢোকানোর পর নির্ধারিত বোতাম চাপলে পানি পড়তে শুরু করবে। পানি নেওয়া শেষে কার্ডটি সরিয়ে ফেললে পানি আসাও বন্ধ হয়ে যাবে।

তিনি আরো বলেন, গত ৬ অক্টোবর ওয়াটার এটিএমটি পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয়। এখান থেকে সরবরাহকৃত পানি প্রায় এক হাজার ফুট গভীর থেকে উত্তোলন করা হয়। ফলে এটি সম্পূর্ণ নিরাপদ। এটিএম বুথের পাশেই কার্ড পাওয়া যায়। সেই কার্ডে ইচ্ছামতো টাকা রিচার্জ করে নেওয়ার সুযোগ আছে। আরো ১০০টি এটিএম বুথ বসানোর পরিকল্পনা রয়েছে।

জানা যায়, এটিএমটি সম্পূর্ণ কম্পিউটারাইজড পদ্ধতিতে তৈরি। এটি স্থাপনে অর্থায়ন ও যন্ত্রপাতি দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক উন্নয়ন সংগঠন উইস্ট বাংলাদেশ। তদারকির দায়িত্ব পালন করছে ঢাকা ওয়াসা। বিক্রীত পানির পুরো অর্থ পাবে ওয়াসা। প্রতিদিন কী পরিমাণ পানি গ্রাহকরা সংগ্রহ করছেন, সেটা প্রতিদিনই দেখা যাচ্ছে। গড়ে প্রতিদিন ১০ হাজার লিটার পানি বিক্রি হচ্ছে।

সরেজমিনে গিয়ে দেখা যায়, ওয়াটার এটিএম পয়েন্টে অনেক নারী-পুরুষ হাঁড়ি-পাতিল নিয়ে যাচ্ছেন। মেশিনে কার্ড ঢুকিয়ে নিচে বোতল বা কলস পাতছেন। একটি পাইপ দিয়ে চাহিদা অনুযায়ী, পানি পাত্রে পড়ছে। উপরে লেখা ফকিরাপুল ওয়াটার এটিএম বুথ, ঢাকা ওয়াসা। পাশেই চেয়ার-টেবিল নিয়ে বসে আছেন ওয়াসার একজন কর্মচারী।

ফকিরাপুলের পানির বুথের ইনচার্জ মো. জুয়েল হোসেন জানান, এ পর্যন্ত ৯০০ জনের বেশি গ্রাহক পানি নেওয়ার জন্য কার্ড করিয়েছেন। এক টাকা থেকে শুরু করে এক লাখ টাকা পর্যন্ত রিচার্জ করা যায়। তবে ১০০ টাকার নিচে কেউ রিচার্জ করেন না।

তিনি আরো জানান, ডেনমার্কের একটি প্রতিষ্ঠান এই মেশিনটি তৈরি করেছে। প্রতিদিন গড়ে ৩৫০-৪০০ কার্ডধারী ব্যক্তি এখান থেকে পানি নিয়ে যান। আরেকটি এটিএম মুগদায় বসানো হয়েছে। তবে সেটি অন্য একটি প্রতিষ্ঠান করেছে বলে তিনি জানান। পানি নিতে আসা ফকিরাপুলের রিপন জানান, এটি একটি ভালো উদ্যোগ। ঢাকায় খাবারের পানির খুব সমস্যা। এতো কম টাকায় বিশুদ্ধ পানি পাওয়া যায় না। কিন্তু ওয়াসার কারণে পাওয়া যাচ্ছে।

Comments

comments