Download Free FREE High-quality Joomla! Designs • Premium Joomla 3 Templates BIGtheme.net
Home / শিল্প-সাহিত্য / আজ বিশ্ব কবিতা দিবস

আজ বিশ্ব কবিতা দিবস

আজ ২১ শে মার্চ, বিশ্ব কবিতা দিবস। বরাবরের মতো ইউনেস্কো ঘোষণা দিয়েছে আজকের দিনটাকে বিশ্ব কবিতা দিবস হিসেবে, ১৯৯৯ সালে। মানব মননের উৎকর্ষ সাধনে কবিতার ভূমিকায় মুখ্য বলে আমাদের বিশ্বাস। প্রাচীন কাল থেকেই মানুষের মনের সূক্ষ্ম সূক্ষ্ম অনুভূতির বন্ধ দরজাগুলোকে মৃদু মৃদু আঘাতে যে ছোট ছোট ছিদ্র করে দিয়েছে তা দিয়ে যে পরিমাণে আলো বাতাস নিরন্তর ঢুকে চলেছে সেই আলোর ঝলকানি পাথরের খোদাই কিংবা প্যাপিরাসে পড়লে দেখতে পাই গিলগামেস বের হয়েছে অমরত্বের খোঁজে যেখানে উটনাপিশটিম ফিরে যাওয়ার উপদেশ দিচ্ছে; একদল লোক দেবী ইসথারের বন্দনা করে চলেছে; সু-সিনের জন্য নববধূ বিয়ের গীত গেয়ে চলেছে; একিলিস হেকটরকে ধাওয়া করে চলেছ; অডেসিয়াস প্রাণপণে নিজভূমে ফিরছে; ইনিয়াস ট্রয় থেকে পালাচ্ছে; নিজের চোখ উপড়ে ফেলছে ইডিপাস; কুরুক্ষেত্রে ভাইয়ের উপর ভাই ঝাপিয়ে পড়ছে; ক্যাটো হ্যামোনের পুরোহিতকে অপমান করছে; অগ্রজ ভার্জিল পথহারা দান্তেকে আলো দেখিয়ে নিয়ে যাচ্ছে; একদল নাবিক লিসবন থেকে ভারতের উদ্দেশ্যে রওনা হচ্ছে…এমনই হাজারো স্বপ্নে হাজারো তারার মতো মানব মননে হাজারো কাজের মাঝে জ্বলজ্বল করছে হাজারো আখ্যান, হাজারো মানুষের গল্প, মানুষের ভালোবাসার গল্প, কবিতারূপে। কবিতা কখনো ফুঁসে উঠে বিপ্লবে; হয়ে উঠে বিদ্রোহী; পেরিয়ে যায় দুর্গমগিরি কান্তার মরু; কখনো আদিপ্রাণ হয়ে গেয়ে উঠে তাতা থৈথৈ। কবিতা এমনই সেচ্ছাচারীঃ না দমে যাওয়া স্যাটান; অপ্রতিরোধ্য স্যামসন। কবিতা এক অন্ধকবির কৃষ্ণ দর্শন; হাজারো পথ পাড়ি দেয়া কবির দু’দণ্ড শান্তির গল্প; মহাবীর পিতার হাতে ছেলের মৃত্যু; পথহারা কবির পথ খুঁজে পাওয়া; ড্যাফোডিলের ছন্দে মনভুলানো, নাইটেঙ্গেলের সুরে বর্তমান ভুলে থাকা, আফিমের নেশায় জানাডু ভ্রমণ; সত্যের মাঝে আনন্দ খুঁজে পাওয়া; পশ্চিমা ঝড়ে সব উড়িয়ে দেয়া।

এই বিমূর্ত কবিতা যা কখনো নারীর মতো; কখনো বয়ে যাওয়া নদীর কুলুকুলু ধ্বনি; কখনো মেঘ হয়ে ভেসে বেড়ানো দূত; কখনো বৃষ্টি হয়ে ঝরে পড়া শরীরে ফোটায় ফোটায় যা বিদ্যাপতির মতোই কাতর; কালিদাসের মতোই নিঃসঙ্গ, হুইটম্যানের মতোই সর্বগ্রাসী; কেভিন গিলবার্টের মতোই কালো; ইমরুল ক’য়েসের মতোই প্রেমিক; নিদা ফাজলির মতোই সুন্দর; গালিবের মতোই মুশকিল পাসান্দ; শামসুর রাহমানের মতোই স্বাধীনতাকামী; আল মা’রের মতোই ক্ষমা; ডিকিন্সনের মৃত্যুরূপী প্রিয়তমা; এলিয়টের মতো না দেখতে পাওয়া ফোটাফোটা বিন্দু; তোমার আমার না দেখতে পাওয়া ভালোবাসা, একবুক সিন্ধু; আর্নল্ডের মতো সৈকতের পাড়ে সৃষ্টি; মেঘ দে পানি দে বলে প্রার্থনা যখন অনাবৃষ্টি; লোরকার মতো মৃত্যুঞ্জয়ী; লক্ষীর মতোই উদার; কুবেরের মতোই বৈভ।

এইধারা বাংলাদেশে আজো টেলিমাকাসের মনঃশক্তিতে বলীয়ান। তাই দেশের বিভিন্ন প্রান্তরে এইধারা বহমান। যারা সৃষ্টিশীল মানুষ, যারা জীবনটাকে কাছ থেকে দেখতে পারেন, যারা মানবগুণে মন রাঙিয়ে নিতে পারেন তাঁরাই কবি, তাঁরাই কবিতাপ্রেমী। আর বাংলাদেশ কবিতার দেশ, যে মাটির সুধা পান করে কাব্যদেবী পুষ্ট হয়েছে সে মাটির কবিতায় সব রূপরঙ ভেসে আসে। তাই এইদিনটির সাথে একাত্ব ঘোষণা করেছে কিছু কবিতাপ্রেমীরা। ঢাকা, রাজশাহী, দিনাজপুর, সিলেট ইত্যাদি জায়গাতে বেশ কিছু আয়োজন চোখে পড়ার মতো। দিনে দিনে কবিতা প্রেমীদের সংখ্যা বাড়ছে। আর কী চাই? তাই পৃথিবীর ছোট্ট একটি দেশে থেকে পৃথিবীর সমস্ত কবিদের জানাই হাজারো শুভেচ্ছা। জয় হোক কবিদের! জয় হোক কবিতার! বেঁচে থাকুব কবিতা প্রেমীরা।

লেখক: রাজ রিডার
ইংরেজি বিভাগ, ইসলামী বিশ্ববিদ্যালয়, কুষ্টিয়া।

Comments

comments